Guiding Policies and Principles of ISC

Rules and Regulations_Academic

01. What rules and regulations a teacher must know  and follow?


একজন শিক্ষককে একাডেমিক লাইফে ভাল করতে হলে অনেক বেশি সচেতন থাকতে হয়। একজন শিক্ষককে তার দায়িত্ব কর্তব্য সঠিকভাবে পালন করতে হলে এসচ বিষয় জানা আবশ্যক। গুরুত্বপূর্ণ কিছু নীতিমালার তালিকা নিম্নে দেয়া হলো যার বিস্তারিত পাঠ ও প্রশিক্ষণ শিক্ষকদের ধারাবাহিক নেয়া উচিতঃ ১) একজন শিক্ষকের ক্লাস রুমের দায়িত্ব কর্তব্য; ২) একজন শিক্ষকের টিচার্স রুম এ্যাটিতিউড এবং দায়িত্ব ও কর্তব্য; ৩) একজন শিক্ষকের দৈনিক করনীয় কাজের তালিকা; ৪) একটি ক্লাস রুমে ক্লাস কনডাক্ট করার বিষয়াবলী; ৫) বিএড এবং এম এড কর্তৃক প্রনীত দায়িত্ব ও কর্তব্যসমূহ; ৬) প্রফেশানাল লাইফ এবং বিফোর-প্রফেশানাল লাইফ এর মধ্যে পার্থক্য? ৭) প্রফেশানাল এ্যাটিটিউড (এ্যাটিচুড) বা দৃষ্টিভংগিসমূহ; 8) প্রশ্নপত্র প্রণয়ন নীতিমালা; ৯) বিভিন্ন ক্লাসের মানবন্টন; ১০) বিভিন্ন বোর্ড পরীক্ষার মানবন্টন; ১১) উত্তরপত্র মূল্যায়ন নীতিমালা; ১২) সংশ্লিষ্ট ক্লাসের জন্য বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রণীত কারিকুলাম; ১৩) সংশ্লিষ্ট বিষয়ের জন্য সরকার কর্তৃক প্রকাশিত বইয়ের শিক্ষক সংস্করণ পড়া, কারিকুলাম্যা উল্লিখিত দৃষ্টিভিংগি জানা আবশ্যক। নোটঃ এসব বিষয় জানার জন্য একজন শিক্ষকের স্বল্পমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি পেশাগত প্রশিক্ষণ যেমন বিএড ও এমএড করা জরুরী। রেফারেন্সঃ ০১) আইপিডিএ রিসার্চ; ০২) উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক প্রণীত বিএড ও এম এড এর বই।




02. What is the Teachers'-room language pattern of the a teacher?


ক্লাসরুমের মতই একজন শিক্ষককে তার কলিগদের সাথে আচার আচরণের ক্ষেত্রে অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হয়। এক্ষেত্রে নিম্নে উল্লিখিত বিষয়গুলোর উপর দৃষ্টি রাখা সবার দায়িত্বঃ ০১) একজন কলিগকে তার বয়স, তার একাডমিক ব্যাকগ্রাউন্ড, তার পারিবারিক বা জন্ম এলাকা ইত্যাদি বিষয় বিবেচনায় না নিয়ে সম্মান করতে হবে। ০২) একজন কলিগকে নিয়ে কখনোই কোন অশোভন মন্তব্য বা টিকা টিপ্পনি করা যাবেনা; ০৩) কারো কোন ব্যক্তিগত দূর্বলতা বা আচার আচরন নিয়ে তার অনুপস্থিতিতে গীবত করা যাবেনা; ০৪) অবিবাহিত কলিগ বা বিবাহিত কলিগ বা ডিভোর্সড কলিগদের নিয়ে মজা করা বা ব্যাংগ করা যাবেনা; ০৫) কোন কলিগের বিষয়ে গভীর ব্যক্তিগত প্রশ্ন করা যাবেনা; ০৬) অফিসিয়াল পরিবেশে সব সময় মিনিমাম স্ট্যান্ডার্ড নিয়ে কথা বলা বাঞ্ছনীয়; ০৭) অফিস রুমে বিয়ের উপকারিতা, স্বামীর উপকারিতা, স্ত্রীর উপকারিতা, সন্তানের উপকারিতা, ছেলে বা মেয়ে থাকার একপাক্ষিক উপকারিতা ইত্যাদি নিয়ে গভীর তর্ক বিতর্কে লিপ্ত হওয়া যাবেনা; কারণ আপনার পার্শ্বেই একজন কলিগ থাকতে পারে যাদের এসবের কোন একটি বিষয়ে হয়ত কোন কষ্টকর স্মৃতি রয়েছে। ০৮) সকলকে সম্মান দিয়ে আপনি সম্বোধন করাই শ্রেয়; ০৯) কারো বেতন ভাতা বা ইত্যাকার পারসোনাল ইস্যু নিয়ে আলোচনা না করাই বাঞ্ছনীয়; ১০) কারো স্পাউজ চাকুরি করেন কিনা, অনেক টাকা পয়সা আছে কিনা ইতাদি বিষয় এ্যাভয়েড করাই শ্রেয়; ১১) কোন শিক্ষকদের আর্থিক স্বচ্ছলতা, একাডেমিক ব্যকগ্রাউন্ড বা অন্য কোন বিষয়ে অন্যদের চেয়ে একটু অগ্রসর হলে তা প্রকাশের সময় সাবধানতা অনলম্বন করা উচিত। এসব বিষয়ে বলার সময় শিষ্টাচার অবলম্বন করাই শ্রেয়; ১২) টিচার্স রুমে বসে শুধুমাত্র বর্তমান প্রতিষ্ঠানের নেগেটিভ বিষয় তুলে ধরা বা খুঁটে খুঁটে বের করা যাবেনা। এসব বিষয়ে যথাযথ প্লাটফর্মে বলতে হবে; ১৩) একজন কলিগের সাথে শুধু দূর্বল বা নেগেটিভ বিষয়ে বলে বলে তার মনকে ম্যানেজমেন্ট এর বিষয়ে বিরক্ত করা যাবেনা; ১৪) শিক্ষকরুমে প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন বা ক্লাস রুমের উন্নয়নে, বা ক্লাসে কোন সমস্যা হলে সেসব বিষয়ে আলোচনা করা যাতে পারে। ... রেফারেন্সঃ ০১। আইপিডিএ গবেষণা ফলাফল।





Duties and Responsibilities

01. What are the duties and Responsibilities of a subject teacher?


একজন শ্রেণী শিক্ষকের সঠিক দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের মাধ্যমেই সুশৃংখল ও প্রাণবন্ত হয়েউঠে ঐ শ্রেণীর শ্রেণী কার্যক্রম। শ্রেণী শিক্ষক হলেন শ্রেণীর প্রধান; শ্রেণীর প্রাণ। তাই শ্রেণী শিক্ষকের কার্যক্রমের উপরই অধিকাংশ সময় নির্ভর করে ঐ শ্রেণীর সাফল্য ও ব্যর্থতা। অবশ্য এই সাফল্যের অন্যতম পূর্বশর্ত হলো অধিকাংশ মানসম্মত শিক্ষার্থীর উপস্হিতি নিশ্চিত করা। একজন শ্রেণী শিক্ষক তার নিজস্ব চিন্তা-চেতনা, ব্যক্তিত্ব, মেধা-যোগ্যতা, মননশীলতা আর আধুনিক প্রযুক্তির প্রয়োগে একটি নির্দিষ্ট কাঠামোর মাধ্যমে ঐ শ্রেণীর শ্রেণীকার্যক্রম পরিচালনা করবেন। শ্রেণী শিক্ষক শিক্ষার্থীর নিকট কখনও হবেন একজন আদর্শশিক্ষক, অভিভাবক, পিতা; কখনও হবেন রসিক, গম্ভীর, রাহবার, পথিক; কখনও হবেন সুশৃংখলজাতি বিনির্মাণে যোগ্য নেতা তৈরীর আধুনিক কারিগর। একজন শ্রেণী শিক্ষককে হতে হবে দৃঢ়চেতা, উত্তম নৈতিক চরিত্রের অধিকারী, নিরপেক্ষ, অকুতোভয়, সত্যবাদী। তিনি তার অনুপমচরিত্র মাধুর্য দিয়ে শিক্ষার্থীর মন জয় করবেন। এক কথায় তিনি হবেন তার নিজস্ব স্বকীয়তায়অভিনেতা-শিক্ষক, শিক্ষার্থীর নিকট এক অনুসরণীয় আদর্শ। একজন শ্রেণি শিক্ষকের জন্য প্রনীত ২১টি মৌলিক দায়িত্ব হচ্ছেঃ একজন শ্রেণী শিক্ষকের মধ্যে থাকতে হবে উদ্ভাবনী ক্ষমতা, নতুন কিছু সৃষ্টি করার নিরন্তর প্রচেষ্টা। তিনি হবেন শিক্ষার্থীর সুপ্ত প্রতিভা বিকাশ ও উন্নয়নের এক অনিবার্য মাধ্যম। একজন শ্রেণী শিক্ষককে বেশ কিছু মৌলিক দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন করতে হয়। তার মধ্যে অন্যতম কিছু মৌলিক কাজ সম্পর্কে আলোচনা করা হল- ১। হাজিরা খাতায় নাম উঠানো। ২। ডায়েরিতে শিক্ষার্থীর পিতা- মাতার নাম বা স্থানীয় অভিভাবকের নাম এবং তাদের মোবাইল নম্বর, বাসার ঠিকানা, অভিভাবকের পেশা সংরক্ষণ করবেন । ২। ফলাফল রেজিস্ট্রার খাতায় শিক্ষার্থীর বিভিন্ন পরীক্ষা প্রোগ্রেস রিপোর্ট তৈরি করবেন । ৩। । শ্রেণি শিক্ষক সবল, দূর্বল, অধিক দূর্বল, বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীর তথ্য সংরক্ষণ করবেন। ৪। শিক্ষক বিধি মোতাবেক সময়মত বিদ্যালয়ে উপস্থিত হবেন এবং শ্রেণি কার্যক্রম শেষে সবকিছু সুন্দরভাবে গুছিয়ে রেখে প্রতিষ্ঠান ত্যাগ করবেন। ৫। শিক্ষার্থীর প্রতি একজন শ্রেণি শিক্ষকের আচরণ বা দৃষ্টিভঙ্গি সবসময় হবে ইতিবাচক । তিনি নেতিবাচকতা সম্পূর্ণভাবে পরিহার করবেন । শিক্ষক নিজে শৃংখলা মেনে চলবেন । .
৬। শ্রেণি শিক্ষক নিয়মিত প্রাত্যহিক সমাবেশে সময়মত উপস্থিত থাকবেন । ৭। শ্রেণি কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য শ্রেণি শিক্ষক শিক্ষার্থীদেরকে বেশ কয়েকটি সমান গ্রুপে ভাগ করে দিবেন । ৮। শিক্ষার্থীর মধ্যে সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক চেতনা সৃষ্টি করার মানসে শ্রেণি শিক্ষক গোপন ভোটের মাধ্যমে ক্যাপ্টেন নির্বাচন করবেন । ৯। একজন শ্রেণি শিক্ষক তার শিক্ষার্থীর সাথে বিশ্বস্থ বন্ধুর মত আচরণ করবেন । ১০। । শিক্ষক-শিক্ষার্থী সম্পর্ক বজায় রেখে একজন শ্রেণি শিক্ষক শিক্ষার্থীর সুখে-দুখে, সাফল্য-ব্যর্থতায় সব সময় পাশে থাকবেন । . ১১। । একজন শ্রেণি শিক্ষককে শিক্ষার্থীর আচরণ দেখে তার মনের ভাষা বুঝতে হবে। ১২। একজন শ্রেণি শিক্ষক শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রেষণা সৃষ্টি করবেন ১৩। । শ্রেণি শিক্ষকের নিজস্ব গঠনমূলক বা সৃজনশীল কোনো পরামর্শ থাকলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের সাথে আলোচনা করে সে অনুযায়ী কাজ করবেন । ১৪। শ্রেণি শিক্ষক শ্রেণির বিষয় শিক্ষকদের সাথে পরামর্শ করবেন এবং তাঁদের নিকট থেকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ নিবেন ।
১৫। কোন শিক্ষার্থী শ্রেণিতে অনিয়ম বা শৃংখলা ভঙ্গ করলে শ্রেণি শিক্ষক তা অভিভাবক ও প্রতিষ্ঠান প্রধানকে অবহিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সহায়তা করবেন । . ১৬। শ্রেণি শিক্ষক শিক্ষার্থীর পেশাগত জীবনের লক্ষ্য জেনে নিবেন । এতে করে শিক্ষক শিক্ষার্থীকে তার লক্ষ্যে পৌঁছতে প্রয়োজনীয় উপদেশ দিয়ে সহায়তা করতে পারবেন । ১৭। শ্রেণি শিক্ষক তাঁর বিষয়ে পেশাগত মান উন্নয়নের লক্ষ্যে সময়ে সময়ে সরকারি বা বেসরকারি পর্যায়ে আয়োজিত শিক্ষক প্রশিক্ষণে অংশ গ্রহণ করবেন । নিজ বিদ্যালয়ে ইন হাউজ ট্রেনিং করাবেন। ১৮। একজন শ্রেণি শিক্ষক বা বিষয় শিক্ষক যে বিষয়টিতে শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করবেন সে বিষয়টি সম্পর্কে তাঁর সুস্পষ্ট জ্ঞান থাকতে হবে । ১৯। শিক্ষক তাঁর সুবিধা মত সময়ে এই পাঠাগারে প্রবেশ করবেন নিজের জ্ঞানের প্রসার ঘটানোর জন্য । ২০। পেশাদারী এবং নৈতিক দায়িত্ববোধ থেকে একজন শ্রেণি শিক্ষক মূল্যায়নের ক্ষেত্রে সব সময় সকল শিক্ষার্থীর জন্য একই রকম ধারাবাহিকতা বজায় রাখবেন । মূল্যায়নের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর পরিচয় যাতে প্রাধান্য না পায় বরং শিক্ষার্থীর মেধার মাধ্যমে সকলকে সমান দৃষ্টিতে মূল্যায়ন করলে প্রতিভাবান শিক্ষার্থীরা যথাযথভাবে মূল্যায়িত হবে । . ২১। যথাযথ উপকরণ ব্যবহার ও পাঠ পরিকল্পনা করে অংশ গ্রহন মুলক ক্লাস নিতে হবে। যাতে থাকবে কুশল বিনিময়, পূর্ব জ্ঞান যাচাই, পাঠ ঘোষণা, শিখন ফল জানানো,বোর্ডের কাজ, আলোচনা, দলিয়,একক কাজ, মূল্যায়ন, বাড়ির কাজ,বিদায়। ICT পূর্ণ ব্যবহার। এছাড়া ও আ‌রো কিছু দা‌য়িত্ব সম্প‌র্কে একজন শিক্ষককে বিষয়গত জ্ঞানের পাশাপাশি নিম্নলিখিত বিষয়েও জ্ঞান অর্জন করতে হয়- ১। শিক্ষার্থীকে জানবার জ্ঞান।
২। শিখন পরিবেশের জ্ঞান।
৩। শিক্ষাদান সম্পর্কিত জ্ঞান।
৪। বিদ্যালয় ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক জ্ঞান।
৫। তত্ত্বাবধান সংক্রান্ত জ্ঞান।
৬। নৈতিক মূল্যবোধের জ্ঞান।
৭। রুচি বা আগ্রহ অনুযায়ী জ্ঞান। References: 01. Education Bangla,




02. What are the fundamentals qualities of a teacher (subject teacher or class teacher or teacher)?


একজন শিক্ষকের মৌলিক গূণাবলীঃ

শ্রেণি শিক্ষককে হতে হবে--

১। দৃঢ়চেতা, উত্তম নৈতিক চরিত্রের অধিকারী।

২। নিরপেক্ষ,অকুতোভয়,সত্যবাদী ।

৩। অনুপম চারিত্রিক মাধুর্য দিয়ে শিক্ষার্থীর মন জয় করবেন।

৪। নিজস্ব চিন্তা-চেতনা,ব্যক্তিত্ব,মেধা যোগ্যতা, মননশীলতা আর আধুনিক প্রযুক্তির প্রয়োগে শ্রেণির কার্যক্রম পরিচালনা করবেন।

৫। শ্রেণি শিক্ষকের মধ্যে থাকতে হবে উদ্ভাবনী ক্ষমতা, নতুন কিছু সৃষ্টি করার নিরন্তর প্রচেষ্টা।

৬। শিক্ষার্থীর সুপ্ত প্রতিভা বিকাশ ও উন্নয়নের এক অনিবার্য মাধ্যম ।

৭।ধৈর্যশীলতা হবে একজন শ্রেণি শিক্ষকের অন্যতম প্রধান গুণ ।




03. What should be the class room language behaviour pattern of a teacher?


ভাষা নিজেদের ভাব বিনিময়ের বা কথা বলার এক অন্যতম মাধ্যম। ভাষা যেহেতু শব্দ ও বাক্যে সমষ্টি, তাই ভাষা ব্যবহারের সময় একজন অনেক সতর্ক থাকতে হয়। একটি ক্লাসরুমে নানান ধরনের, নানান ব্যাকগ্রাউন্ডের এবং নানান চিন্তা-রুচির শিক্ষার্থী থাকে, তাই, ক্লাসে শব্দ প্রয়োগ, বাক্য গঠন এবং উদাহরণ প্রয়োগের ক্ষেত্রে একজন শিক্ষককে অনেক বেশি সচেতন থাকতে হয়। এক্ষেত্রে একজন পুরুষ শিক্ষককে বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক প্রেক্ষাপটে একজন মহিলা শিক্ষকদের চেয়ে অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হয়। ১) একজন শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সাথে আঞ্চলিকতা পরিহার করে কথা বলবেন; তিনি সব সময় প্রমিত ভাষা ব্যবহারের চেষ্টা করবেন। তবে কোন উদাহরণ দিতে গিয়ে আঞ্চলিক শব্দ ব্যবহার করতে পারবেন। ০২) শিক্ষক কখনো কোন ব্যক্তি, বস্তু বা আঞ্চলিকতাকে হেয় প্রতিপন্ন করবেন না। তিনি সকলকে সম্মান করে কথা বলবেন, এবং অন্যেদেরকে সম্মান করে কথা বলাতে অভ্যাস করাবেন; ০৩) শিক্ষার্থীদেরকে ক্লাসে অপমানজনক বা ব্যঙ্গাত্মক কথা বলবেন না। কেউ পাঠে মনোযোগী না হলে, বা পাঠ প্রস্তুতি নিয়ে না আসলে সরাসরি আক্রমণাত্মক কথা না বলে সুন্দরভাবে বুঝানোর চেষ্টা করবেন। ০৪) শিক্ষক কখনো শিক্ষার্থীর পরিবারের কাউকে নিয়ে হেয় প্রতিপন্ন করে কথা বলবেন না; ০৫) কোন অশোভন আচরন, বা ইভ-টিজং মূলক কথা বলবেন না; ০৬) স্পেশিয়ালি মহিলা শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলার সময় বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করবেন; ০৭) ক্লাস উদাহরণ দেয়ার সময় অশালীন কোন উদাহরণ দেবেন না। যেমন- আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন প্রেম করতাম, বা আমার বি/এফ বা জি/এফ--- এ জাতীয় উদাহরণ বা গল্প করবেন না; ০৮) পরিবারের উদাহরণ দিতে গিয়ে এমন কোন উদাহরণ আনবেন যা বিব্রতকর; ০৯) নির্দিষ্ট ক্লাস ব্যতীত শিক্ষক শারিরীক শিক্ষা বা মানব দেহের গঠনের এমন বর্ণনা দেবেন না যা এ্যাডাল্ট লিটারেচার এর মধ্যে পড়ে। এমনকি বায়োলিজি বা বিজ্ঞান ক্লাস মানব দেহের বর্ণ্না আসলেও সেক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করবেন; ১০) একজন শিক্ষক অন্য শিক্ষকের বিষয়ে কথা বলার সময় কোনভাবেই তাকে হেয় প্রতিপন্ন করবেন না, কারো বিষয়ে কোন নেগেটিব কথা বলবেন না। বরং শীক্ষার্থীরা কোন নেগেটিভ বিষয় বললেও সে বিষয়ে তিনি সতর্কতার সাথে পজিটিভ কথা বলবেন, বা বিষয়টি তিনি কর্তৃপক্ষক অবহিত করবেন মর্মে শিক্ষার্থীদের আস্বস্ত করে ক্লাস শেষ করবেন। ১১) একজন শিক্ষক কখনোই ক্লাসে ক্যাজুয়াল আচরণ করবেন না। পেশাগত জীবনের দায়িত্ব-কর্তব্য বিষয়ে সচেতন থেকে তিনি দায়িত্ব পালন করবেন। ১২) পেশাগত জীবন এবং মুক্ত বা শিক্ষার্থী জীবনের দায়িত্ব ও কর্তব্য থেকে সচেতন তিনি ক্লাসে তার দায়িত্ব পালন করবেন না।




04. What are the major areas of duties of a head master? (According to M.Ed.)


একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একজন প্রধান শিক্ষকের অনেক ধরণের দায়িত্ব থাকে। মূলত একজন প্রধান শিক্ষককে সেই প্রতিষ্ঠানের সকল ধরণের কাজের সাথেই জড়িত হতে হয়। প্রশাসন থেকে ক্লাস রুম সকল কাজের বিষয়েই একজন প্রধান শিক্ষককে অভিজ্ঞ হতে হয়। কারণ অভিজ্ঞতা ব্যতীত তিনি কাউকে সঠিক দৃষ্টিভংগি ও গাইডলাইন প্রদান করতে পারেন না। একজন প্রধান শিক্ষকের কাজকে ৫টি বিস্তর এরিয়ায় বিভক্ত করা যেতে পারেঃ শিক্ষকরুপে দায়িত্বঃ ক) শ্রেণি পাঠনা খ) সামাজিকতা গ) শিক্ষাগত উন্নয়ন প্রশাসক রুপে প্রধান শিক্ষকঃ নেতৃত্ব সংগঠন পরিচালনা জনসংযোগ সমন্বয় সাধন গ) শিক্ষা ব্যবস্থাপনায় দায়িত্ব বিস্তারিতঃ References: M.Ed book available in Bangladesh Open University ebooks database. Download pdf version (total 9 pages_ readbale text 7 page). 02. Also avaible in ISC own database





Policies and Guidelines

ADMISSION GUIDELINES of ISC


The PDF Version of the Guidelines can be downloaded from the LINK




Email Polciy of ISC


উত্তরঃ ইমেইল ব্যবহার নীতিমালা ২০২০ (Email ussage rules of Intelligentsia School and College 2020). প্রিন্সিপ্যাল দপ্তরের অনুরোধে আইপিডিএ থেকে ইনটেলিজেন্টসিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে একটি একক ইমেইল ব্যবহার নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। এই নীতিমালার বিস্তারিত নিম্নরুপঃ ০১। এই নীতিমালা "ইমেইল ব্যবহার নীতিমালা ২০২০ (Email ussage rules of Intelligentsia School and College 2020)" নামে পরিচিত হইবে। ০২। ইনটেলিজেন্টসিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের সকল দাপ্তরিক কার্যক্রমে এই নীতিমালা অনুসরণ করা হবে। ০৩। এই নীতিমালা সকল ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ, সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারি, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের জন্য প্রযোজ্য হইবে। ০৪। ইনটেলিজেন্টসিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ এর যে কোন যোগাযোগে এটি ব্যবহার করা হবে। ০৫। উর্ধ্বতন শিক্ষা অফিস বা মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য হইবে। ০৬। যে কোন ধরণের সার্কুলার, বিজ্ঞাপন, সিভি প্রেরণের ক্ষেত্রে এই নীতিমালা প্রযোজ্য হইবে। ০৭। এই সকল কার্যক্রমে একটি মাত্র ইমেইল ব্যবহার করা হবে। এই ইমেইল হচ্ছে- office@intelligentsiabd.org (ডোমেইন যুক্ত এই ইমেইলকে বলা হয় বিজিনেস মেইল)। 08। এছাড়া অফিসিয়াল কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য ইনটেলিজেন্টসিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ এর একটি ইমেইল রয়েছে। এটি হচ্ছে জিমেইল- office.iscbd@gmail.com । এটি হচ্ছে ব্যাক আপ মেইল। কোন কারণে বিজিনেস মেইলে কোন সমস্যা দেখা দিলে এই জিমেইল ব্যবহার করা হবে। সাধারণত এই ইমেইল শিক্ষকদের ব্যবহারের কোন প্রয়োজনীয়তা নেই। তবে এই ইমেলে কোন কিছু সেন্ড করলে তা সরাসরি চেয়ারম্যান এবং ভাইস-চেয়ারম্যান মহোদয় সরাসরি পেয়ে যাবেন। ০৯। office@intelligentsiabd.org মেইলটি সরাসরি ভাইস-চেয়ারম্যান এবং চেয়ারম্যান মহোদয়ের ব্যক্তিগত ইমেইল এর লিংক করা হয়েছে। তাই, office@intelligentsiabd.org মেইলে কোন কিছু সেন্ড করলে ইনটেলিজেন্টসিয়া অফিস, ভাইস-চেয়ারম্যান এবং চেয়ারম্যানসহ, প্রশাসনিক কর্মকর্তারা তা দেখতে পারবেন। ১০। এই নীতিমালা অদ্য ২৮-০৯-২০২০ খ্রি তারিখ হতে জারি করা হলো। এবং অদ্য হতেই এটি কার্যকর বলে বিবেচিত হবে। ১১। কোন পরিচালক, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারি, অভিভাবক বা অন্য যে কেউ যদি ভাইস-চেয়ারম্যান বা চেয়ারম্যান মহোদয়কে ব্যক্তিগত ইমেইল করতে চান, তাহলে অফিসিয়াল ইমেইল office@intelligentsiabd.org বা office.iscbd@gmail.com ব্যবহার করা যাবেনা। সেক্ষেত্রে তাদের ব্যক্তিগত ইমেইল যেমন- vicechairman@intelligentsiabd.org or chairman@intelligentsiabd.org ব্যবহার করতে হবে। ১২। এই ইমেইল ব্যবহার নীতিমালা ২০২০ (Email ussage rules of Intelligentsia School and College 2020) বোর্ড অফ ভাইস-চেয়ারম্যান ও চেয়ারম্যান এর দপ্তর থেকে যৌথভাবে প্রণয়ন করা হয়েছে এবং এটি সকল পরিচালকদেরকে অবহিত করা হবে। ইমেইল নীতিমালার পিডিএফ কপি ডাউনলোড লিংক ...




Recruitment Policy 2020 (নিয়োগ বিধিমালা ২০২০)


০৯ পৃষ্ঠার এর Recruitment Policy 2020 (নিয়োগ বিধিমালা ২০২০) ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন ক্লিক





Administrative and Acdemic Policies

Personal Duties and Responsibilities

Office Order of 2019

Theme Song_ISC
00:00 / 03:15